ইসরায়েলি হামলায় ১ মাসে ৪০০০ এর বেশি ফিলিস্তিনি শিশু নিহত | এক মাসেরও কম সময়ে ১0,000 ফিলিস্তিনিকে হত্যা করেছে ইসরাইল | পুলিশের সঙ্গে বাংলাদেশের পোশাক শ্রমিকদের সংঘর্ষ | গণতন্ত্রের সংজ্ঞা দেশে দেশে পরিবর্তিত হয় – শেখ হাসিনা | গাজা যুদ্ধ অঞ্চলে আশ্রয়কেন্দ্রে ইসরায়েলি হামলায় একাধিক বেসামরিক লোক নিহত হয়েছে | মিসেস সায়মা ওয়াজেদ ডাব্লিউএইচও এর দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়া অঞ্চলের নেতৃত্বে মনোনীত হয়েছেন | গাজা এবং লেবাননে সাদা ফসফরাস ব্যবহৃত করেছে ইসরায়েল | বিক্ষোভে পুলিশ সদস্যের মৃত্যুর ঘটনায় বিরোধীদলের কর্মীকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে – বাংলাদেশ পুলিশ | বাংলাদেশে ট্রেনের সংঘর্ষে ১৭ জন নিহত, আহত অনেক | সোশাল মিডিয়া এবং সাধারন মানূষের বোকামি | কেন গুগল ম্যাপ ফিলিস্তিন দেখায় না | ইসরায়েল-হামাস যুদ্ধ লাইভ: গাজা হাসপাতালে ‘গণহত্যা’ ৫০০ জনকে হত্যা করেছে ইসরাইল | গাজায় ইসরায়েলি হামলায় ১,৪১৭ জন নিহতের মধ্যে ৪৪৭ শিশু এবং ২৪৮ জন নারী | হিজবুল্লাহ হামাসের চেয়ে অনেক বেশি শক্তিশালী। তারা কি ইসরায়েলের বিরুদ্ধে যুদ্ধে যোগ দেবে? | গাজাকে ধ্বংসস্তুপে পরিণত করার অঙ্গীকার নেতানিয়াহুর | হার্ভার্ডের শিক্ষার্থীরা ইসরায়েল-গাজা যুদ্ধের জন্য ‘বর্ণবাদী শাসনকে’ দোষারোপ করেছে, প্রাক্তন ছাত্রদের প্রতিক্রিয়া | জিম্বাবুয়েতে স্বর্ণ খনি ধসে অন্তত ১০ জনের মৃত্যু হয়েছে, উদ্ধার তৎপরতা অব্যাহত | সেল ফোনের বিকিরণ এবং পুরুষদের শুক্রাণুর হ্রাস | আফগান ভূমিকম্পে ২০৫৩ জন নিহত হয়েছে, তালেবান বলেছে, মৃতের সংখ্যা বেড়েছে | হামাসের হামলার পর দ্বিতীয় দিনের মতো যুদ্ধের ক্ষোভ হিসেবে গাজায় যুদ্ধ ঘোষণা ও বোমাবর্ষণ করেছে ইসরাইল | পরমাণু বিদ্যুৎ কেন্দ্রের জন্য রাশিয়া থেকে প্রথম ইউরেনিয়াম চালান পেল বাংলাদেশ | বাংলাদেশের রাজনীতিবিদ ও আইন প্রয়োগকারী কর্মকর্তাদের ওপর ভিসা বিধিনিষেধের পলিসি বাস্তবায়ন শুরু করেছে যুক্তরাষ্ট্র | হরদীপ সিং নিজ্জার হত্যায় ভারতের সংশ্লিষ্টতার তদন্তে ঘনিষ্ঠভাবে কাজ করেছে কানাডা এবং যুক্তরাষ্ট্র | যুক্তরাষ্ট্র, কানাডা সম্প্রতি বাংলাদেশের বিমানবাহিনী প্রধান হান্নানকে ভিসা দিতে অস্বীকার করেছে | ডেঙ্গু প্রাদুর্ভাবে ৭৭৮ জনের প্রাণহানি |

মারিনা আব্রামোভিচের ভয়ংকর এক্সপেরিমেন্ট

মানুষ সৃষ্টির সেরা জীব। প্রতিবেশী প্রাণীরা অতিষ্ঠ এই সেরা সৃষ্টির মানবিক সহযোগিতায়। আচ্ছা প্রাণী, বৃক্ষদের কথা বাদ দেই কারন খাদ্যচক্রের দোঁহাই দিয়ে এড়িয়ে যাওয়া যায়। তাহলে, মানুষ মানুষের সাথে কী করেছে গত দুই শতকে একটু স্মরণ করি। ওহ, দুইটা বিশ্বযুদ্ধ, মিলিয়ন মৃত্যু, ধর্ষণ, লুট, বর্ণবাদ আর কী আছে? আচ্ছা এই জিনিসগুলিও বাদ দিতে বলবেন কারন ক্ষমতালোভী রাজনীতিবিদরা আছেন তার পিছনে। তারা কি মানুষ? আচ্ছা তাহলে একটা এক্সপেরিমেন্ট নিয়ে আলোচনা করি আজ, যেখানে ১৯৭৪ সালে যুগোস্লাভিয়ার চিত্রগ্রাহক, পারফর্মেন্স আর্টিস্ট মারিনা আব্রামোভিচ সাহস করে অংশগ্রহণ করেন। সাহসই বলতে হবে কারন এক্সপেরিমেন্টটা ছিল ভয়ংকর যদিও প্রশ্ন ছিল সাধারণ যেখানে উদ্দেশ্য ছিল মানুষের মানবিকতা, সততার বিচ্যুতি ঘটে কখন তা জানার।
এইবার এক্সপেরিমেন্ট নিয়ে শুরু হোক গল্প। মারিনা আব্রামোভিচ ৬ ঘণ্টা দাড়িয়ে থাকবে যেখানে এক্সপেরিমেন্ট এর অংশগ্রহণকারীরা যা ইচ্ছা তাই করতে পারবে তার (মারিনা) সাথে। সামনে আছে একটি টেবিল যেখানে আছে ৭২টি বস্তু আছে যা ব্যাবহার করা যাবে মারিনার উপর!আর এর দায়ভার শুধু মারিনারই। ৭২ টা আইটেমের মধ্যে ছিল গোলাপ, অলিভ অয়েল, এমনকি বুলেট সহ পিস্তলও।
ওই ছয় ঘণ্টায় যা ঘটেছিল তা ছিল লোমহর্ষক। প্রথমদিকে অংশগ্রহণকারীর একজন তাকে ঘুরিয়ে দেখতে শুরু করলো। তারপর কেউ করে আন্তরিক ভাবে স্পর্শ । তৃতীয় ঘণ্টায় ব্লেড দিয়ে কেটে ফেলা হল পরনের কাপড়। চতুর্থ ঘণ্টায়, সেই একই ব্লেড ব্যাবহার করা হল অঙ্গে। সামান্য যৌন অত্যাচার চলল। এতো খারাপ অবস্থায় থাকার পরেও মারিয়া অনড় ছিল জানার জন্য যে আর কী ঘটতে পারে, লুকানো মানবিক পৈশাচিক আনন্দ আর কোন পর্যায় যেতে পারে!
তবে শেষের দুই ঘণ্টায় অবস্থা আরও খারাপ দিকে অগ্রসর হচ্ছিলো।
মারিনা আব্রামোভিচ নিজের মুখের বাণী ছিল আরও হৃদয়বিদারক যেখানে এক্সপেরিমেন্ট শেষে তিনি বলেছিলেন,”আমার মনে হয়েছে আমি ধর্ষিত হয়েছি, কাটা হয়েছে কাপড়, আর গোলাপের কাঁটা গুলো বিঁধানো হয়েছে আমার পেটে”
এক্সপেরিমেন্ট শেষে, মারিনা আব্রামোভিচ মুখোমুখি হয় অংশগ্রহণকারীদের মাঝে। মজার ব্যাপার হচ্ছে তাদের মাঝে ছিল না অনুশোচনা, তারা এমনকি মারিনার দিকে তাকিয়ে দেখার চেষ্টাও করে নাই। এমনভাবে ব্যাবহার প্রদর্শিত হয়েছিলো যে তারা ভুলেই গিয়েছে তারা কি করেছে!

আচ্ছা মানুষ কখন খারাপ কাজ করে? কোন পর্যায়ের কেমিক্যাল ইম্বেলেন্সে এসে যায় এই পৈশাচিক ব্যাবহার?

তথ্য সূত্রঃ

Leave a Reply