ইসরায়েলি হামলায় ১ মাসে ৪০০০ এর বেশি ফিলিস্তিনি শিশু নিহত | এক মাসেরও কম সময়ে ১0,000 ফিলিস্তিনিকে হত্যা করেছে ইসরাইল | পুলিশের সঙ্গে বাংলাদেশের পোশাক শ্রমিকদের সংঘর্ষ | গণতন্ত্রের সংজ্ঞা দেশে দেশে পরিবর্তিত হয় – শেখ হাসিনা | গাজা যুদ্ধ অঞ্চলে আশ্রয়কেন্দ্রে ইসরায়েলি হামলায় একাধিক বেসামরিক লোক নিহত হয়েছে | মিসেস সায়মা ওয়াজেদ ডাব্লিউএইচও এর দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়া অঞ্চলের নেতৃত্বে মনোনীত হয়েছেন | গাজা এবং লেবাননে সাদা ফসফরাস ব্যবহৃত করেছে ইসরায়েল | বিক্ষোভে পুলিশ সদস্যের মৃত্যুর ঘটনায় বিরোধীদলের কর্মীকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে – বাংলাদেশ পুলিশ | বাংলাদেশে ট্রেনের সংঘর্ষে ১৭ জন নিহত, আহত অনেক | সোশাল মিডিয়া এবং সাধারন মানূষের বোকামি | কেন গুগল ম্যাপ ফিলিস্তিন দেখায় না | ইসরায়েল-হামাস যুদ্ধ লাইভ: গাজা হাসপাতালে ‘গণহত্যা’ ৫০০ জনকে হত্যা করেছে ইসরাইল | গাজায় ইসরায়েলি হামলায় ১,৪১৭ জন নিহতের মধ্যে ৪৪৭ শিশু এবং ২৪৮ জন নারী | হিজবুল্লাহ হামাসের চেয়ে অনেক বেশি শক্তিশালী। তারা কি ইসরায়েলের বিরুদ্ধে যুদ্ধে যোগ দেবে? | গাজাকে ধ্বংসস্তুপে পরিণত করার অঙ্গীকার নেতানিয়াহুর | হার্ভার্ডের শিক্ষার্থীরা ইসরায়েল-গাজা যুদ্ধের জন্য ‘বর্ণবাদী শাসনকে’ দোষারোপ করেছে, প্রাক্তন ছাত্রদের প্রতিক্রিয়া | জিম্বাবুয়েতে স্বর্ণ খনি ধসে অন্তত ১০ জনের মৃত্যু হয়েছে, উদ্ধার তৎপরতা অব্যাহত | সেল ফোনের বিকিরণ এবং পুরুষদের শুক্রাণুর হ্রাস | আফগান ভূমিকম্পে ২০৫৩ জন নিহত হয়েছে, তালেবান বলেছে, মৃতের সংখ্যা বেড়েছে | হামাসের হামলার পর দ্বিতীয় দিনের মতো যুদ্ধের ক্ষোভ হিসেবে গাজায় যুদ্ধ ঘোষণা ও বোমাবর্ষণ করেছে ইসরাইল | পরমাণু বিদ্যুৎ কেন্দ্রের জন্য রাশিয়া থেকে প্রথম ইউরেনিয়াম চালান পেল বাংলাদেশ | বাংলাদেশের রাজনীতিবিদ ও আইন প্রয়োগকারী কর্মকর্তাদের ওপর ভিসা বিধিনিষেধের পলিসি বাস্তবায়ন শুরু করেছে যুক্তরাষ্ট্র | হরদীপ সিং নিজ্জার হত্যায় ভারতের সংশ্লিষ্টতার তদন্তে ঘনিষ্ঠভাবে কাজ করেছে কানাডা এবং যুক্তরাষ্ট্র | যুক্তরাষ্ট্র, কানাডা সম্প্রতি বাংলাদেশের বিমানবাহিনী প্রধান হান্নানকে ভিসা দিতে অস্বীকার করেছে | ডেঙ্গু প্রাদুর্ভাবে ৭৭৮ জনের প্রাণহানি |

সাকুরাজিমার আগ্নেওগিরির অগ্নুৎপাতে মারাত্মক ঝুকির মুখে হাজারো মানুষ

সাকুরাজিমা

সাকুরাজিমার আগ্নেওগিরির অগ্নুৎপাতে মারাত্মক ঝুকির মুখে হাজারো মানুষ

জাপানিজ আগ্নেয়গিরিটি থেকে আগামী ২৫ বছর ধরে অগ্নুৎপাত হবার কথা যার ফলে এর নিকটস্থ শহর ও তার হাজার হাজার মানুষের জীবন এখন হুমকির মুখে । ইতিপূর্বে আগ্নেয়গিরিটির সর্বশেষ অগ্নুৎপাত ঘটে ১৯১৪ সালে যা কেড়ে নেয় ৫৮ জন মানুষের জীবন, ফেলে রেখে যায় কাগশিমা শহরের ধ্বংসস্তূপ । বর্তমানে পর্বতটির ছায়ায় ঢাকা এ শহরে বাস করে প্রায় ৬০৬০০০ জন বাসিন্দা যারা এ বছর ১লা থেকে ২৬শে জুলাইয়ের মধ্যে দেখেছেন আগ্নেয় গিরি থেকে নির্গত কমপক্ষে ৫০০০ মিটার উঁচু ছাইয়ের আস্তরন ।

আন্তর্জাতিক পর্যবেক্ষকদের একটি দল জাপানের সর্বাধিক সক্রিয় আগ্নেয় গিরি গুলোর মধ্যে অন্যতম এই আগ্নেয়গিরিটির গতিবিধি ও প্লাম্বিং সিস্টেম কে নিবিড় পর্যবেক্ষণে রেখেছেন। সাকুরাজিমা আগ্নেয়গিরিটি বেশ অনেককাল ধরেই বিশেষজ্ঞদের গবেষনার মূল বিষয় বস্তু । এক্ষেত্রে তারা ব্যবহার করছেন জিপিএস,জিও ফিজিক্যাল ডেটা ও ত্রিডি কম্পিউতার ম্যাপিং । তারা জানতে পারেন যে সাকুরাজিমার জালামুখ থেকে প্রতি বছর প্রায় ১৪ লক্ষ ঘন মিটার পরিমান লাভা নির্গত হয় ।

তবে আগ্নেয়গিরিটির ছোট ছোট অগ্নুৎপাত দিয়ে এটি এর লাভার মজুদ কমাতে না পারার কারনে বড় ধরনের উদগিরনের সম্ভাবনা বহুগুন বেড়ে গিয়েছে । ১৯১৪ সালের উদগিরনের পরিমাণ ছিল ১.৫ ঘন কিলোমিটার যা প্রকৃত পক্ষেই বিপুল পরিমান এবং বিজ্ঞানীরা হিসাব করে ধারনা করছেন যে এই ধরনের উদগিরনের জন্য কমপক্ষে ১৩০ বছর ব্যবধান প্রয়োজন হয় । সেই হিসাবে আমরা এখনো ২৫ বছর পেছনে ।

তারা আশা করছেন যে তাদের এই আবিস্কার অগ্নুৎপাতের ব্যপারে পূর্বপ্রস্তুতি নিতে সাকুরাজিমার কর্তৃপক্ষ ও বিশ্বের অন্যন্য অঞ্চলের বাসিন্দাদের কাজে লাগবে । তারা বলেন যে এভাবে ঠিক কখন আগ্নেয়গিরি পুনরায় সক্রিয় হয়ে উঠবে তা যদি আগে থাকতেই বের করা সম্ভব হয় তবে এতে করে অসংখ্য জীবন বাচানো সম্ভব হবে ।

Leave a Reply