রমজানে নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যের দাম দেশে বেড়েই চলেছে, প্রবাসে বাড়ছেনা কেন?

আত্মিয় সজন ও বন্ধু বান্ধবদের মধ্যে প্রবাসি থাকার কারনে অন্যান্য দেশের বাজার সম্পর্কে কিছুটা জানার সৌভাগ্য হয়েছে। প্রবাস জীবন কঠোর পরিশ্রমের জীবন, একই সাথে দুর্নীতি আর অসৎ মানূষের কলুষতা মুক্ত জীবনও বটে।

যারা কিছুকাল উন্নত বিশ্বে কাজ করে এসেছেন তাদের পক্ষে আমাদের দেশের এই দুর্নীতিবাজ লোভী মানুষদের মাঝে মানিয়ে নিতে কিছুটা কস্টই হয়। উন্নত বিশ্বে দাম বাড়েনা দ্রব্যের। সব কিছু যেন সিস্টেমের মধ্যে চলে। কেউ কারও কাজে নাগ গলায় না, চাদাবাজি নেই, দুর্নীতি নেই, তাদের সব খারাপ কিছু যেন এসে জমা হয়েছে এই ছোট দেশটিতে। যেখানে একেবারে নিম্ন পর্যায় থেকে সরবোচ্চ পর্যায় পর্যন্ত বসে রয়েছে চোর।

রমজানে মধ্য প্রাচ্যের দেশগুলো পন্যের দাম কমিয়ে দেয়, বড় দিনে উন্নত বিশ্বের এবং পশ্চিমা দেশগুলো দ্রব্যে অভাবনীয় ছাড় দেয়। আর আমাদের দেশে যে শুধু রমজানে বাড়ে তাইনা, দেশে যাই ঘটুক তার পরিনাম হয় যেন একটাই, সেটা হলো দ্রব্য মূল্য বৃদ্ধি। এটা যে শুধু ব্যবসায়িদের দোষ তাও কিন্তু নয়। একদিকে রয়েছে লোভী ব্যবসায়ী, আরেক দিকে রয়েছে পরজীবি, যারা এই ব্যবসায়ীদের উপর ভর করে চাদাবাজি করে বেঁচে থাকে। যে যেদিক থেকে পারে লাভ করার ধান্দায় থাকে। সারা পৃথিবীর সব অসৎ মানূষ যেন জড়ো হয়েছে এক অঞ্চলে।

রমজান মাসে মধ্য প্রাচ্যের দেশগুলো দাম কমানোর প্রতিযোগিতায় নামে। ধর্মীয়ে দিন গুলোতে বিশ্বের প্রায় উন্নত সব দেশেই একই চিত্র। স্থিতিশীল বাজার, দুর্নীতি মুক্ত সিস্টেম। যারা এর বাইরে বলে তারা বানিয়ে বলে, কারন এগুলো মুখের কথা নয় বরং আশে পাশের মানূষগুলোর দশকের পর দশক ধরে অর্জিত অভিজ্ঞতা থেকে পাওয়া।

আমাদের দেশে কেন জিনিসপত্রের দাম বাড়ে জিজ্ঞেস করছেন ? কারন এদেশে ভাল মানূষের বড় অভাব। এটাই মূল কারন।

লেখা: নাম জানাতে অনিচ্ছুক