ডায়াবেটিস নিয়ে কিছু গুরুত্বপূর্ণ তথ্য

ডায়াবেটিস নিয়ে কিছু গুরুত্বপূর্ণ তথ্য

ডায়াবেটিস চিহ্নিত করা হয় রক্তে উচ্চমাত্রার শর্করার উপস্থিতি দিয়ে যা শরীরে ইনসুলিনের অপর্যাপ্ত উৎপাদন কিংবা কার্যকরীতার অভাব উভয় ক্ষেত্রেই দেখা দেয়। যার ফলে বিভিন্ন অঙ্গপ্রত্যঙ্গ এবং কিডনি ক্ষতিগ্রস্ত হতে পারে, অন্ধত্ব, হ্রদরোগ এবং অকাল মৃত্যুর মতো মারাত্মক জটিলতা দেখা দিতে পারে।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার (ডাব্লুএইচও) তথ্য অনুযায়ী বিশ্বব্যাপী, ১৯৮০ সাল থেকে সম্ভাব্য মারাত্মক রোগে আক্রান্ত মানুষের সংখ্যা চারগুণ বেড়ে প্রায় ৪২২ মিলিয়ন হয়েছে।

যুক্তরাষ্ট্রে ৩৪.২ মিলিয়ন লোকের ডায়াবেটিস রয়েছে যা তাদের জনসংখ্যার প্রায় ১০.৫%। এই সংখ্যার মধ্যে ৭.৩ মিলিয়ন (২১.৪%) এরই রোগ এখনো শনাক্ত হয়নি।

জাতীয় পরিসংখ্যান সিস্টেমের অস্থায়ী তথ্য অনুসারে, ২০২০ সালে যুক্তরাষ্ট্রে মৃত্যুর অষ্টম প্রধান কারণ ছিল ডায়াবেটিস।

বিভিন্ন ধরণের ডায়াবেটিস রয়েছে: টাইপ ১,  টাইপ ২ এবং গর্ভকালীন ডায়াবেটিস।

রক্তের গ্লুকোজের মাত্রা স্বাভাবিকের চেয়ে বেশি থাকলেও যদি ডায়াবেটিসের হিসাবের সনাক্তকরণের জন্য পর্যাপ্ত পরিমাণ না থাকলে একে প্রি ডায়াবেটিস কন্ডিশন বলা হয়। টাইপ ২ ডায়াবেটিস হওয়ার আগে, প্রায় সব রোগিরাই প্রি -ডায়াবেটিসে আক্রান্ত থাকে। গবেষণায় দেখা গেছে যে প্রিডিবিটিসের সময় শরীরের কিছু কিছু দীর্ঘমেয়াদী ক্ষতি হতে পারে।

টাইপ ১ ডায়াবেটিস

দেহের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা যখন অগ্ন্যাশয়ের বিটা কোষগুলিকে ধ্বংস করে দেয় তখন টাইপ ১ ডায়াবেটিসের বিকাশ ঘটে। অগ্নাশয়ের বিটা কোষগুলিই দেহের একমাত্র কোষ যা ইনসুলিন তৈরি করে। ডায়াবেটিসের এই রূপটি সাধারণত শিশু এবং অল্প বয়স্কদের ক্ষেত্রে হয়। ডায়াবেটিসে আক্রান্তদের মধ্যে কেবল ৫-১০% লোকের মধ্যে টাইপ ১ ডায়াবেটিস রয়েছে। টাইপ ১ ডায়াবেটিসের ঝুঁকি বাড়ানোর কারণগুলির মধ্যে রয়েছে অটোইমিউন, জিনগত বা পরিবেশগত।

টাইপ ১ ডায়াবেটিস প্রতিরোধের কোনও উপায় নেই।



টাইপ ২ ডায়াবেটিস

টাইপ ২ ডায়াবেটিস ঘটে যখন শরীর পর্যাপ্ত পরিমান ইনসুলিন উৎপাদন করে না বা কোষগুলি ইনসুলিন সঠিকভাবে ব্যবহার করতে না পারে। টাইপ ২ ডায়াবেটিস ডায়াবেটিসের সবচেয়ে সাধারণ রূপ যা প্রাপ্তবয়স্কদের ডায়াবেটিস সনাক্তকরনের প্রায় ৯০% থেকে ৯৫% ক্ষেত্রে হয়ে থাকে। এটি বৃদ্ধ বয়স, স্থূলত্ব, পারিবারিক ইতিহাস, সক্রিয়তার অভাব এবং বর্ণ / জাতি সম্পর্কিত। আফ্রিকান আমেরিকান, লাতিনো আমেরিকান, আমেরিকান ইন্ডিয়ান, এশিয়ান আমেরিকান, হাওয়াই এর স্থানীয় এবং অন্যান্য প্রশান্ত মহাসাগরীয় দ্বীপপুঞ্জীদের মধ্যে এটি বেশি দেখা যায়। শিশু এবং কিশোর-কিশোরীদের মধ্যে টাইপ ২ ডায়াবেটিস যদিও এখনও বিরল, তবে ইদানিং তা আরও ঘন ঘন ধরা পড়ছে।

গর্ভকালীন ডায়াবেটিস – 

গর্ভকালীন ডায়াবেটিস গর্ভাবস্থায় দেখা দেয়া এক ধরনের গ্লুকোজ অসহিষ্ণুতা। এটি সমস্ত গর্ভবতী মহিলার প্রায় ৪% দের প্রভাবিত করে। গর্ভকালীন ডায়াবেটিস নির্ধারণের অর্থ এই নয় যে কোনও মহিলার গর্ভধারণের আগেই ডায়াবেটিস ছিল, বা জন্ম দেওয়ার পরে তার ডায়াবেটিস হবে।

এছাড়া অন্যান্য ধরনের ডায়াবেটিস হয় সাধারনত জিনগত পরিস্থিতি, সার্জারি, ওষুধাদি, সংক্রমণ এবং অন্যান্য অসুস্থতার ফলে । এই জাতীয় ডায়াবেটিসের সমস্ত নির্ণয়ের ১% থেকে ৫% হয়ে থাকে।

সম্ভাব্য লক্ষণসমূহ

ঘন মূত্রত্যাগ
অতিরিক্ত তৃষ্ণা
ওজন হ্রাস
চরম ক্ষুধা
আকস্মিক দৃষ্টিশক্তির পরিবর্তন
হাত বা পায়ে অসাড়তা
ক্লান্তি
শুষ্ক ত্বক
ক্ষত নিরাময়ে অধিক সময় লাগা
ঘন ঘন সংক্রমণ

জটিলতা

ডায়াবেটিসযুক্ত প্রাপ্তবয়স্কদের হৃদরোগে মৃত্যুর হার প্রায় দুই থেকে চারগুণ বেশি থাকে। ডায়াবেটিসে আক্রান্তদের মধ্যে স্ট্রোকের ঝুঁকি দুই থেকে চারগুণ বেশি।

এছাড়া ডায়াবেটিসে আক্রান্ত ব্যক্তিদের উচ্চ রক্তচাপের ঝুঁকি বেশি থাকে।

ডায়াবেটিস ২০-৭৪ বছর বয়সী বয়স্কদের মধ্যে নতুন অন্ধত্বের প্রধান কারণ। ডায়াবেটিস কিডনি ব্যর্থতার অন্যতম প্রধান কারণ। ডায়াবেটিসে আক্রান্ত ৬০% থেকে ৭০% রোগির ক্ষেত্রে সল্প থেকে মারাত্মক স্নায়ুতন্ত্রের ক্ষতি বা নিউরোপ্যাথির সম্ভাবনা রয়েছে।

Leave a Reply