রাষ্ট্রপতি বাইডেনের সেনারা প্রত্যাহারের সিদ্ধান্তে আফগানিরা নিজেদের ভবিষ্যত নিয়ে উদ্বিগ্ন

কাবুল, আফগানিস্তান – আফগানিস্তানের যুদ্ধবিধ্বস্ত রাজধানী কাবুলে এক মহিলা উচ্চ বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী শঙ্কিত যে তাকে স্নাতক পাস করার সূজোগ দেয়া হবে না। কান্দাহারের এক ডালিম চাষী ভাবেন যে তার বাগান কখনও তালেবানদের স্থল মাইনমুক্ত হবে কিনা। গজনির একজন সরকারী সৈনিক আশঙ্কা করছেন যে যুদ্ধ কখনো বন্ধ হবেনা।

বিভিন্ন স্তরের তিনজন আফগান, প্রত্যেকের প্রশ্ন একই : আমেরিকানরা চলে গেলে আমার কী হবে?

২০০১ সালের সন্ত্রাসবাদী হামলার পরে আমেরিকানদের আগমনের পর সম্প্রতি বুধবার রাষ্ট্রপতি বাইডেন সমস্ত আমেরিকান সেনা প্রত্যাহারের প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন। হোয়াইট হাউস থেকে বক্তব্য রেখে তিনি বলেছিলেন, “আফগানিস্তানের যুদ্ধ কখনই প্রজন্মানতরে হবার উদ্যোগ ছিল না।

এই সেনা প্রত্যাহার মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের ইতিহাসের দীর্ঘতম যুদ্ধের অবসান ঘটাবে, তবে আফগানিস্তানের জনগণের জন্য এটি আরও একটি কঠিন অধ্যায়ের সূচনা হওয়ার সম্ভাবনাও রয়েছে।

“আমি আমার ভবিষ্যত নিয়ে খুব চিন্তিত। অবস্থা দেখে খুবই আশাহীন মনে হচ্ছে। যদি তালেবানরা দখল করে নেয় তবে আমি আমার পরিচয় হারাব, ”কাবিলের পার্ডিস হাইস্কুলের একাদশ শ্রেণির স্নাতক ওয়াহিদা সাদেকি বলেছিলেন। “এটা আমার অস্তিত্ব সম্পর্কে। এটি তাদের প্রত্যাহারের বিষয়ে নয়। আমি ২০০৪ সালে জন্মগ্রহণ করেছি এবং তালেবানরা নারীদের প্রতি কী করেছে তা আমার কোনও ধারণা নেই তবে আমি জানি যে মহিলাদের সব কিছু থেকে নিষিদ্ধ করা হয়েছিল। “