ভারতে করোণার সংক্রমন এক কোটি ৬৯ লক্ষ, মৃত ১৯২৩১১, পর পর চার দিন সংক্রমনের বিশ্ব রেকর্ড

ভারতে করোণার সংক্রমন এক কোটি ৬৯ লক্ষ, মৃত ১৯২৩১১, পর পর চার দিন সংক্রমনের বিশ্ব রেকর্ড

শনিবার ভারত কোভিড -১৯-এর ৩৪৯,৬৯১ টি নতুন সংক্রমন রিপোর্ট করেছে, সরকারী ও বৈজ্ঞানিক মতে, করোন ভাইরাস মহামারী চলাকালীন সময়ে দেশটি পর পর চার দিন সংক্রমণের বিশ্ব রেকর্ড তৈরি করেছে।

দেশটি টানা সংক্রমনের নবম দিনে ২৪ ঘন্টায় ২৭৬৭ নিহতের কথা জানিয়েছে যা ছিল সর্বোচ্চ দৈনিক মৃত্যু। ১.৩ বিলিয়ন মানূষের দেশে গত তিন দিনে এক মিলিয়ন নতুন সংক্রমন রেকরড করা হয়েছে, যার ফলে করোনোভাইরাসের আক্রান্তের সংখ্যা দাড়িয়েছে ১৬.৯ মিলিয়ন, যার মধ্যে মারা গিয়েছে ১৯২৩১১ জন।

কোভিড -১৯ এর আকাশ চুম্বী সংক্রমন ভারতের সম্প্রদায় এবং হাসপাতালগুলোকে বিধ্বস্ত করে ফেলছে। সমস্ত কিছুর সরবরাহ স্বল্প – নিবিড় পরিচর্যা ইউনিটের বিছানা, ওষুধ, অক্সিজেন এবং ভেন্টিলেটর ইত্যাদি।

জার্মানি এবং দক্ষিণ কোরিয়া রবিবার থেকে ভারতের জন্য নতুন ভ্রমণ নিষেধাজ্ঞার ঘোষণা দেশটিতে প্রথমবারের মতো B.1.617 ভ্যারিয়েন্ট পাবার পর ক্রমবর্ধমান আন্তর্জাতিক উদ্বেগেরই ফলস্বরূপ।

ভারতীয় স্বাস্থ্য মন্ত্রনালয় জানিয়েছে যে ভাইরাসের এই ধরনের পরিবর্তন এর সংক্রমনের তিব্রতা বাড়িয়ে দেয় এবং একে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা থেকে বাঁচতে সাহায্য করে।

জার্মানির স্বাস্থ্যমন্ত্রী জেনস স্পান টুইট করে বলেছেন, “আমাদের টিকা দেওয়ার প্রচারণাকেকে বিনস্ট না করেই ভারতে ভ্রমণকে উল্লেখযোগ্যভাবে সীমাবদ্ধ করতে হবে।”

রবিবার রাত থেকে, কেবলমাত্র কোভিড ১৯ সংক্রমন টেস্টে নেগেটিভ আসা জার্মান নাগরিকদের ভারত থেকে জার্মানিতে প্রবেশের অনুমতি দেওয়া হবে এবং পৌছনোর সাথে সাথে অবশ্যই ১৪ দিনের জন্য কোয়ারেন্টাইনে থাকতে হবে। “দক্ষিণ কোরিয়ার নাগরিকদের বহনকারী বিমান গুলিকে প্রবেশে অনুমতি দেওয়া হবে তবে সীমিত মাত্রায়,” দক্ষিণ কোরিয়ার স্বাস্থ্য কর্মকর্তা সান ইয়ং র’ এক ব্রিফিংয়ে জানিয়েছেন।

শনিবার, স্বাস্থ্য মন্ত্রনালয়ে থেকে জানিয়েছেন যে তারা কোভিড -১৯-এর সংক্রমন রোধে ১৪০ মিলিয়নেরও বেশি ভ্যাকসিন সরবরাহ করেছে – এবং এর মধ্যে ২৪ মিলিয়ন গত ২৪ ঘন্টায় দেয়া হয়েছে।

সিএনএন থেকে পাওয়া তথ্য অনুসারে যুক্তরাষ্ট্র এবং চীনের পরে বিশ্বের সবচেয়ে বেশি সংখ্যক করোনভাইরাস ভ্যাকসিন দেয়া সত্তেও, মাথাপিছু টিকা দেওয়ার ক্ষেত্রে অনেক দেশের তুলনায় ভারত পিছিয়ে রয়েছে।



সোমবার দেশটি ঘোষণা দিয়েছিল যে ১৮ বা তার চেয়ে বেশি বয়স্ক ব্যক্তিরা ১ মে থেকে কোভিড -১৯ টি ভ্যাকসিনের জন্য যোগ্য হবেন। বেসরকারী টিকাদান সরবরাহকারীরাও ভ্যাকসিন বিক্রয় ও সরবরাহ করতে পারবেন।

রবিবার মাসিক রেডিও প্রোগ্রামে ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী টিকা দেওয়ার গুরুত্বের উপর জোর দিয়েছিলেন এবং দ্বিতীয় কোভিড -১৯ পর্বকে “ঝড়” বলে উল্লেখ করেছিলেন যা “জাতিকে কাঁপিয়ে দিয়েছিল।”

“আমি আপনাকে এমন সময়ে কথা বলছি যখন কোভিড -১৯ আমাদের ধৈর্য এবং বেদনা সহ্য করার ক্ষমতাকে পরীক্ষা করে দেখছে। আমাদের অনেক প্রিয়জন আমাদেরকে অসময়ে ফেলে চলে গিয়েছেন। প্রথম তরঙ্গকে সফলভাবে মোকাবেলা করার পরে, জাতির মনোবল উচ্চতর ছিল, তারা আত্মবিশ্বাসী ছিল। তবে এই ঝড় জাতিকে নাড়া দিয়েছে, “বলেন মোদী ।

রাজ্য মন্ত্রীরা এবং স্থানীয় কর্তৃপক্ষ ফেব্রুয়ারির পর থেকে দ্বিতীয় পর্বের বিষয়ে সতর্ক করে দিয়ে আসছিলেন, কিন্তু কেন্দ্রীয় সরকারের মধ্যে নেতৃত্বের শূন্যতা দেখা গিয়েছিল এবং সাম্প্রতিক সপ্তাহগুলি পর্যন্ত মোদী পরিস্থিতি নিয়ে বেশিরভাগ সময় নীরব ছিলেন।

শনিবার মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী আন্তনি ব্লিংকেন ভারতের জনগণের প্রতি তার আন্তরিক সহানুভূতির কথা ব্যক্ত করেন । “আমাদের সমবেদনা ভয়াবহ কোভিড -১৯ প্রাদুর্ভাবে আক্রান্ত ভারতীয় জনগণের প্রতি” বলে ব্লিংকেন টুইট করেছেন।

“আমরা কোভিড মোকাবেলায় আমাদের বন্ধু ভারত সরকারের সাথে নিবিড়ভাবে কাজ করছি, এবং অতিসত্বর আমরা ভারতের জনগনের জন্য স্বাস্থ্যসেবার ক্ষেত্রে অতিরিক্ত সহায়তা প্রদান করবো।”

ভারতীয় ভ্যাকসিন উৎপাদনকারীদের উপর থেকে করোনার ভ্যাক্সিন উৎপাদনের বিধিনিষেধ প্রত্যাহারের জন্য বাইডেনের প্রশাসনের উপর চাপ বাড়ছে, উৎপাদন বাড়ানোর যা প্রয়োজন বলে জানিয়েছে উৎপাদনকারীরা।

অক্সফোর্ড-অ্যাস্ট্রাজেনেকা দ্বারা আবিষ্কৃত ভ্যাক্সিন, কোভিশিল্ড এর প্রস্তুতকারী ভারতের সিরাম ইনস্টিটিউটের সি ই ও,আদার পুনওয়ালা রাষ্ট্রপতি জো বাইডেনকে নিষেধাজ্ঞা তুলে নেবার জন্য অনুরোধ করেছিলেন যেটি প্রাক্তন রাষ্ট্রপতি ডোনাল্ড ট্রাম্পের প্রতিরক্ষা উৎপাদন আইনের অধীনে প্রয়োগ করা হয়েছিল। অভ্যন্তরীণ ভ্যাক্সিন উৎপাদন বৃদ্ধির জন্য নিষেধাজ্ঞাটি ফেব্রুয়ারি থেকে বাইডেনের সরকারও বহাল রাখেন।



সাম্প্রতিক ভারতে কোভিড ১৯ এর তিব্রতা অত্যন্ত বাড়ার পর থেকে বাংলাদেশের সাথে বিমান যোগাযোগ বন্ধ রয়েছে এবং সোমবার থেকে স্থল পথে যোগাযোগও বন্ধ করে দেয়া হবে বলে জানিয়েছে বাংলাদেশ সরকার। ১৪ দিনের জন্য এই ঘোষনা কার্যকর থাকবে এবং এই সময়ে পন্যবাহী যানবাহন ব্যতিত সকল ধরণের যোগাযোগ বন্ধ থাকবে।

অন্যান্য খবর –

কোভিড -১৯: যুক্তরাজ্যে করোনভাইরাসে আরও দুটি মৃত্যু এবং ১৭৭০ জন নতুন আক্রান্ত

ইসরায়েলে প্রবল জনস্রোতে নিহত কমপক্ষে ৪৫, আহত দেড় শতাধিক

ইসরায়লে ফিলিস্তিন সংঘাত ২০২১

Leave a Reply