জম্মু ও কাশ্মীরে একদল হিন্দু পুরুষ 8 বছর বয়সীকে ধর্ষণ ও খুন করেছে বলে অভিযোগ করা হয়েছিল!

জম্মু ও কাশ্মীরে একদল হিন্দু পুরুষ 8 বছর বয়সীকে ধর্ষণ ও খুন

জম্মু ও কাশ্মীরে একদল হিন্দু পুরুষ 8 বছর বয়সীকে ধর্ষণ ও খুন করেছে বলে অভিযোগ

রাসানা, জম্মু ও কাশ্মীরের ৮ বছর বয়সী মেয়েটির প্রতি কোনো সহানুভূতি ছিল না। যেন তার জীবন একদল খুনে ধর্ষকদের ধর্ষণ ও খুন ছাড়া আর কোন লক্ষ্য  আর কিছু ছিলনা ।

পুলিশ তদন্তকারীরা বলছেন যে হিন্দু যুবকদের একটি দল তাকে মুসলিম যাযাবর সম্প্রদায়কে আতঙ্কিত করার জন্য বিশেষভাবে বেছে নিয়েছিল। তারা তাকে  তৃণভূমি থেকে অপহরণ করে, তার গলায় মাদকদ্রব্য ভরে এবং তাকে একটি মন্দিরে তিন দিন আটকে রেখে সেখানে তারা তাকে মারধর করে, তাকে প্রতিদিন ধর্ষণ করে এবং অবশেষে তাকে শ্বাসরোধ করে হত্যা করে। শিশুটির উচ্চতা ছিল সাড়ে তিন ফুট লম্বা, সম্পূর্ণ অরক্ষিত এবং অসহায়।

যদিও ভারতজুড়ে শহরগুলিতে এমনকি আন্তর্জাতিকভাবেও ক্ষোভের প্রতিবাদ শুরু হয়েছে, এখানে জম্মু ও কাশ্মীর রাজ্যের রাসানা গ্রামে যেখানে জানুয়ারিতে মেয়েটিকে হত্যা করা হয়েছিল, সেখানকার অবস্থা কিছুটা ভিন্ন।

রসনা ছোট, প্রায় ২০টি বাড়ি নিয়ে গঠিত একটি গ্রাম। এবং এর মধ্য দিয়ে হেঁটে যেতে মাত্র পাঁচ মিনিট সময় লাগে: শুকনো গমের ক্ষেত দিয়ে, দেয়ালের আড়ালে অর্ধেক লুকিয়ে থাকা ছোট ইটের ঘরের পাশ দিয়ে একটি ছোট গোলাপী মন্দির, এখন তালাবদ্ধ।

এখানে অধিবাসিদের মধ্যে সামান্যই অনুশোচনা বা সহানুভূতি আছে বলে মনে হচ্ছে। বেশিরভাগ হিন্দু গ্রামের খুব কম লোকই অপরাধের অমানবিকতা বা মেয়েটির আঘাতপ্রাপ্ত বাবা-মা পালিয়ে যাওয়ার বিষয়ে কথা বলছে। তাদের বাড়ির কাছে মেয়েটিকে দাফন করতে বাধা দেওয়ায় পরিবারকে তার লাশ তাদের সাথে নিয়ে যেতে হয়েছিল।

অমনাবিক ঘটনাটির পরিবর্তে, আপনি তাদের বলতে শুনবেন “আমাদের জমি এবং তাদের জমি। আমদের এবং তাদের”

“এটি হিন্দুদের নিরাশ করার একটি বড় ষড়যন্ত্র,” বলেছেন পাশের গ্রামের একজন প্রবীণ ভাগমল খাজুরিয়া, যিনি জোর দিয়েছিলেন যে মেয়েটির মৃত্যুর সাথে জড়িত আটজনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

Leave a Reply