চুলের যত্ন নেওয়ার সেরা উপায় কী?

চুলের যত্ন নেয়ার সঠিক উপায়

চুলের যত্ন নেওয়ার সেরা উপায়

যে কেউ এই ধরনের চুলের জন্য সিন্ডারেলা, স্নো হোয়াইট বা জেসমিন পেতে চান তাদের স্বাস্থ্যকর এবং চকচকে চুল প্রয়োজন।

আর আমাদের দেশের বর্তমান আবহাওয়ায় চুলকে সুস্থ রাখতে পারা এক বিরাট চ্যালেঞ্জ!

আসুন এই নিবন্ধটি থেকে সুন্দর এবং স্বাস্থ্যকর চুলের জন্য 16 টি কার্যকর টিপস জেনে নেওয়া যাক।

চুলের যত্নের জন্য 18টি কার্যকরী চুলের যত্নের টিপস:

1. চুল রক্ষা

আপনার চুলকে সবসময় রোদ, রোদ এবং বৃষ্টি থেকে রক্ষা করার চেষ্টা করা উচিত। রোদ, তাপ, ধুলোবালি ইত্যাদি চুলের ক্ষতি করে।

ধীরে ধীরে এগুলো চুলের গোড়ায় জমাট বাঁধতে শুরু করে এবং এর ফলে চুল পড়তে শুরু করে। তাই এসব সমস্যা থেকে পরিত্রাণ পেতে খোলা আকাশের নিচে রোদে বা বৃষ্টিতে হাঁটার সময় ছাতা বা ক্যাপ পরা উচিত।

কাপড় বা ওড়না দিয়ে ঢেকে রাখলেও বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই চুলকে নিরাপদ রাখা সম্ভব।

2. সাবধানে ভেজা চুল চিকিত্সা

ভেজা চুল সবচেয়ে ভঙ্গুর। ভেজা অবস্থায় চুলের গোড়া থেকে ভেঙ্গে ফেলা সবচেয়ে সহজ তাই শ্যাম্পু করার সময় চুলে খুব বেশি চাপ দেওয়া উচিত নয়।

এছাড়াও, গোসলের পরপরই চুলের চিরুনি ব্যবহার করা থেকে বিরত থাকতে হবে।

3. সঠিকভাবে শ্যাম্পু করুন

বাইরে গেলে চুলে প্রচুর ধুলোবালি ও ময়লা জমে থাকে। তাই চুল পরিষ্কার করতে চুলের ধরন বুঝে ভালো মানের শ্যাম্পু ও কন্ডিশনার ব্যবহার করুন।

ভালোভাবে ম্যাসাজ করুন এবং শ্যাম্পু করার সময় শ্যাম্পু করুন। যদি আপনার চুল খুব নোংরা হয়, তাহলে দুবার শ্যাম্পু করুন।

সপ্তাহে ৩/৪ দিন ভালো শ্যাম্পু দিয়ে চুল পরিষ্কার করুন।

4. নিয়মিত কন্ডিশনার ব্যবহার করুন

প্রতিদিন গোসল বা চুল ধোয়ার পর হেয়ার কন্ডিশনার ব্যবহার করুন। এটি চুলকে মসৃণ করে এবং ভাঙ্গার সম্ভাবনা কমায়।

5. কন্ডিশনার ব্যবহার করুন কিন্তু সঠিকভাবে

চুলের কন্ডিশনার সঠিকভাবে ব্যবহার করতে হবে। কন্ডিশনার এর কাজ হল চুলকে মসৃণ রাখা মানে চুলের শুরুতে এর কোন প্রয়োজন নেই।

তাই কন্ডিশনার ব্যবহারের সময় চুলের গোড়া থেকে অন্তত এক ইঞ্চি দূরে লাগানো উচিত।

অতিরিক্ত কন্ডিশনার ব্যবহার এড়িয়ে চলতে হবে নতুবা চুল তৈলাক্ত হয়ে যাওয়ার আশঙ্কা থাকে।

6. একই ধরনের চুলের পণ্য ব্যবহার করুন

চুলের যত্ন নেওয়ার সময় একই শরীর থেকে অনুরূপ উপাদান দিয়ে তৈরি পণ্য ব্যবহার করা উচিত।

এটি আপনাকে কোনও পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া ছাড়াই আপনার চুলের যত্ন নিতে দেয়।

7. অতিরিক্ত হিট দেওয়া থেকে বিরত থাকুন

তাপ চুল ভাঙতে সাহায্য করে তাই চুলে আঘাত করা থেকে বিরত থাকাই ভালো।

অত্যধিক তাপ চুল পুড়িয়ে দিতে পারে, তাই যে কোনও ব্লোয়ার, আয়রন বা হেয়ার স্ট্রেইটনার সাবধানতার সাথে ব্যবহার করা উচিত।

8. তোয়ালে আলতোভাবে ব্যবহার করুন

অনেকেই অনেক চাপ দিয়ে চুল তুলে ফেলেন। বারবার ঘর্ষণের ফলে চুল তার স্বাস্থ্য হারায় এবং শিকড় থেকে ভেঙে যাওয়ার ঝুঁকিতে থাকে।

তাই চুল তোলার সময় যতটা সম্ভব আলতোভাবে তোয়ালে ব্যবহার করা উচিত।

9. শিকল না

ঘুমাতে যাওয়ার আগে শক্তভাবে না নাড়ানোই ভালো। এতে চুল একসঙ্গে থাকবে কিন্তু টানাটানি হবে না, ফলে ভেঙে যাওয়ার সম্ভাবনা কম।

10. একটি ভালো বালিশের কভার ব্যবহার করুন

সুতির কাপড় রুক্ষ, যার কারণে বালিশের কভারে চুল পড়ে যেতে পারে, যা নিত্যদিনের ঘটনা হয়ে দাঁড়াতে পারে।

তাই এটি পরিহার করা উচিত এবং পাতলা কাপড়ের আবরণ ব্যবহার করা উচিত।

11. নিয়মিত তেল দিন

চুলের তেলের নিয়মিত ব্যবহার চুলের ফলিকলগুলিকে শক্তিশালী করে তবে এটি অতিরিক্ত হওয়া উচিত নয়। আপনি যদি অতিরিক্ত তেল ব্যবহার করেন তবে তা দূর করার জন্য অতিরিক্ত শ্যাম্পু ব্যবহার করা উচিত যা চুলের জন্য ভালো নয়।

12. গরম তেল দিয়ে ম্যাসাজ করুন

চুলে পরিপূর্ণ পুষ্টি যোগাতে তেল মালিশের বিকল্প নেই। নারকেল তেল ছাড়াও আজকাল বাজারে আমলা তেল, বাদাম তেল, অলিভ অয়েল, ক্যাস্টর অয়েল ইত্যাদি পাওয়া যায়।

আপনি চাইলে এগুলো একসাথে মিশিয়ে চুলে লাগাতে পারেন।

13. চুলে জ্বালাপোড়া করা থেকে বিরত থাকুন

টিজিং করলে চুলের আকার বাড়তে পারে কিন্তু তা চুলের জন্য ভালো নয়। তাই এড়িয়ে চলা উচিত।

14. ঠান্ডা জলে চুল ধুয়ে ফেলুন

গরম পানির ব্যবহার চুলের জন্য ক্ষতিকর তাই চুল পরিষ্কার করতে সবসময় ঠান্ডা পানি ব্যবহার করুন।

শীতকালে অনেকেই চুলে গরম পানি ব্যবহার করেন, যা চুল পড়ার ঝুঁকি বাড়ায়।

15. নিয়মিত চুল ব্রাশ করুন

নিয়মিত চুল ব্রাশ করতে হবে। এটি রক্ত ​​সঞ্চালন বাড়িয়ে চুলের বৃদ্ধিতে সাহায্য করে।

একটি নিয়ম হিসাবে, দিনে 2-3 বার আপনার চুল ব্রাশ করা আপনার চুলের জন্য উপকারী। রাতে ঘুমানোর আগে চুল ব্রাশ করুন।

16. চুলে হেয়ার প্যাক ব্যবহার করুন

চুল সুন্দর করতে হেয়ার প্যাক ব্যবহার করুন। চুল শুষ্ক বা এলোমেলো হলে, প্যাকটি 10 ​​থেকে 15 দিন ধরে লাগান এবং যদি এটি তৈলাক্ত হয় তবে 15 দিন ধরে লাগান।

চুলের সুরক্ষায় ঘরে তৈরি প্যাক বেশি কার্যকর।

17. অতিরিক্ত চুল একটি পণ্য নয়

অতিরিক্ত হেয়ার প্রোডাক্ট কখনোই চুলে ব্যবহার করা উচিত নয়। এটি চুলের বৃদ্ধি এবং সৌন্দর্য ব্যাহত করে।

18. স্বাস্থ্যকর খাবার

আপনার স্বাস্থ্য আপনার চুলে প্রতিফলিত হয়। সুস্থ থাকলে চুল ভালো থাকবে। তাই চুল সুন্দর রাখতে স্বাস্থ্যকর খাবার খাওয়া প্রয়োজন

আর তাই চুলের বৃদ্ধি ও স্বাস্থ্যের জন্য নিয়মিত ভিটামিন, আয়রন ও প্রোটিনের পুষ্টিকর খাবার খান।

Leave a Reply