চীনের কোভিড দ্বারা প্রভাবিত ১৬৫ মিলিয়ন মানুষ

চীনের কোভিড দ্বারা প্রভাবিত ১৬৫ মিলিয়ন মানুষ

চীন তার দুটি বৃহত্তম শহর বেইজিং এবং সাংহাই-এ লকডাউন চালু করেছে – যা অঞ্চল দুটী দেশটির অর্থনীতির বেশিরভাগ অংশ কে চালিত করে – কোভিড -19 প্রাদুর্ভাব বন্ধ করার জন্য এক আপসহীন প্রচেষ্টা। সাংহাই সর্বশেষ প্রাদুর্ভাবের কেন্দ্রে দিনে ১০,০০০ নতুন কেস রিপোর্ট করছে।

ইতিমধ্যে, বেইজিং কর্মকর্তারা সংক্রমণের লাগাম টেনে ধরার জন্য গণ পরীক্ষার অনুশীলন শুরু করেছে, স্কুল বন্ধ করেছে এবং কিছু আবাসিক ভবন লক্ষ করে লকডাউন আরোপ করেছে। এই উদ্যোগগুলি সাংহাইয়ের মতো একটি বিস্তৃত লকডাউনের আশঙ্কার জন্ম দিয়েছে।

মহামারী জুড়ে, চীন একটি কঠোর শূন্য-কোভিড কৌশলে আটকে গেছে যা ভাইরাসের সংক্রমন রোধ করার জন্য লকডাউন, গণ পরীক্ষা, কোয়ারেন্টাইন এবং সীমান্ত বন্ধ এধরনের পদক্ষেপ ব্যবহার করে।তবে অত্যন্ত সংক্রামক ওমিক্রন বৈকল্পিকের আগমন সেই কৌশলটির স্থায়িত্বকে প্রশ্নবিদ্ধ করেছে, ভাইরাসটি সরকারের নিয়ন্ত্রন করার চেয়ে দ্রুত বিভিন্ন শহর এবং প্রদেশে ছড়িয়ে পড়েছে।

কর্তৃপক্ষ এখন সারা দেশে অন্তত ২৭টি শহরে সম্পূর্ণ বা আংশিক লকডাউন কার্যকর করছে, এই বিধিনিষেধগুলি ১৬৫ মিলিয়ন মানুষকে প্রভাবিত করছে।