তিমির মত বড় স্তন্যপায়ী প্রানিদের ক্যান্সার হয় না কেন?

তিমির মত বড় স্তন্যপায়ী প্রানিদের ক্যান্সার

বৃহত্তর জীবের মধ্যে অপেক্ষাকৃত অনেক বেশি কোষ থাকার কারনে তাদের ক্যান্সার হবার সম্ভাবনা বেশি থাকার কথা এবং তারা বেশি দিন বাঁচার কারনে তাদের কোষ বিভাজনের পরিমানও বেশি হয়। সেই হিসেবে, অনেকে ধারনা করতে পারনে যে ক্যান্সার হয়তো শারিরিক আক্রতির সাথে সমানুপাতিকভাবে বাড়বে। কিন্তু স্তন্যপায়ী প্রানীদের উপর গবেষনা লব্ধ তথ্যানুসারে দেখা যায় ক্যান্সার হবার প্রবনতা এভাবে বাড়েনা। এটা দিয়েই মূলত পেটোর প্যারাডক্স এর ধারনা দেয়া যায়।
 
ক্যান্সার কোষ দিয়ে গঠিত টিউমার যাকে ম্যালিগন্যান্ট টিউমার বলা হয় বড় প্রানিতে এদের প্রবলতা কমে যায় বলে দেখা গেছে। এ কারনে বিশেষজ্ঞরা অনুমান করছেন যে বড় প্রানিগুলোতে, ধোকাবাজ ক্যান্সার কোষের আধিক্য দেখা যায়। অর্থাৎ যেকোণ টিউমারে কোষ বৃদ্ধি পেয়ে মারাত্মক অবস্থায় পৌছাতে এসব প্রানির বিরাট আকৃতির দেহে ক্ষেত্রে অনেক সময় লাগে।
 
আর এই সময়ে এই ম্যালিগন্যান্ট টিউমারের ভেতরে নতুন ধরনের ক্যান্সার কোষ তৈরি হয় যা এর পূর্ববর্তী টিউমারের কোষগুলোকে ধংস করে ফেলে। যদিও জানামতে, এখনো পর্যন্ত এই ধরনের স্তন্যপায়ীদের ক্যান্সারের ক্ষেত্রে পর্যায় ক্রমিক কোন গবেষনা হয়নি। তাই এটা শুধুমাত্র বিশেষজ্ঞদের ধারনা মাত্র।